এডসেন্স টিউটোরিয়াল || শিক্ষানবিশদের জন্য এডসেন্স গাইড


এডসেন্স টিউটোরিয়াল- শিক্ষানবিশদের জন্য

আপনি কি গুগোলের কাছ থেকে টাকার একটি চেক পেতে চান? অবশ্যই আপনি সেটা চান, তবে পৃথিবীর প্রায় সব মানুষের মত আপনিও গুগোলে চাকরি করেন না বা, চাকরি করার যোগ্য না। তারপরও কিন্তু আপনি গুগোল এডসেন্সের মাধ্যমে গুগোলের কাছ থেকে চেকটা পেতে পারেন। সেটা যাতে করে সহজে সম্ভব হয় সেজন্যই আমাদের এই এডসেন্স টিউটোরিয়াল।গুগোল প্রতিবছর Advertising থেকে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার আয় করে। এডসেন্স এর মাধ্যমে এই আয়ের একটা অংশ আপনার মত যাদের ওয়েবসাইট আছে তাদের সাথে শেয়ার করে। Adsense এ একাউন্ট খুলতে কোন টাকা লাগে না, সম্পূর্ণ ফ্রীতে যদি একটা এডসেন্স একাউন্ট খোলা যায়- তাহলে এই চেষ্টাটা আপনিও কেন করছেন না? হতে পারে আপনিও ২-৩ মাসের মধ্যে টাকা পেয়ে গেলেন।
গুগোল এডসেন্স এর কি কোন Secret আছে যেটা জানলে সহজে বেশী টাকা আয় করা সম্ভব হবে? এটা কিভাবে কাজ করে? কিভাবে টাকা দেয়? বাংলা সাইট থাকলেই হবে নাকি ইংরেজী সাইট লাগবে? আপনাকে Adsense এর রাজ্যে স্বাগতম। আমাদের টিউটোরিয়ালগুলো ভালো করে পড়ুন, আর শুরু করুন এডসেন্স থেকে আয়ের প্রথম ধাপ।

গুগোল এডসেন্স কি?- এডসেন্স টিউটোরিয়াল

গুগোলের Advertising সিস্টেমের দুইটা অংশ রয়েছে। একটা হচ্ছে Adwords আরেকটা Adsense. এডওয়ার্ডস কাজ করে Advertiser দের সাথে। যারা টাকা দিয়ে বিজ্ঞাপন দেয় তাদের সাথেও গুগোল ব্যবসা করে- সেটাই Adwords এর মাধ্যমে। আপনার- আমার মত যারা Publisher বা, ওয়েবসাইটের প্রকাশক, Youtuber বা, অন্যন্য বিভিন্ন ধরণের প্রকাশক তাদের সাথে গুগোল ব্যবসা করে Adsense এর মাধ্যমে। ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখায় বিনিময়ে টাকা দেয়। আগে বাংলা সাইটে গুগোলের বিজ্ঞাপন দেখানো অবৈধ ছিলো, এখন এটা বৈধ। গুগোল যে টাকাটা Adwords এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছ থেকে নেয় তার একটা অংশ পাবলিশারদের সাথে শেয়ার করে।

এডসেন্স টিউটোরিয়াল সিরিজ পড়ুন-

  1. এডসেন্স কি ও এটা কিভাবে কাজ করে
  2. বাংলা সাইটে বৈধভাবে এডসেন্স এড দেখানো যাবে কি?
  3. ব্লগস্পট সাইটে এডসেন্স পাওয়ার উপায়
  4. এডসেন্স এর বিকল্প হিসেবে কিসের এড দেখানো যায়
  5. কোন সাইজের এড কোথায় দেখালে আয় বেশী হবে
  6. কোন ধরণের কি ওয়ার্ডে বেশী আয় করা সম্ভব
  7. এডসেন্স একাউন্ট ব্যান হওয়ার কারণগুলো

গুগোল এডসেন্স থেকে কত টাকা আয় করা যাবে?

এর কোন নির্দিষ্ট লিমিট নেই, আপনি যত ইচ্ছা তত টাকা আয় করতে পারবেন। অনেক পাবলিশার আছে যারা প্রতিমাসে ১০০০০ ডলার আয় করে, আবার অনেক পাবলিশার আছে যারা মাসে ১ ডলারও আয় করতে পারে না। এটি মূলত দুইটা বিষয়ের উপর নির্ভর করে-
  1. এডে কতগুলো ক্লিক পড়লো
  2. প্রতি ক্লিকে কত টাকা পাওয়া যাবে (CPC)
এছাড়া impression এর জন্যও টাকা দেয়, সেটা অনেক কম। বাংলা সাইটের CPC ইংরেজী সাইটের তুলনায় কম থাকে। ভিজিটর বাংলাদেশী হলেও কম টাকা পাওয়া যাবে সেটা মেনে নিতেই হবে। এক ক্লিকে ০.০১ ডলারও পেতে পারেন, আবার ১ ডলারও পেতে পারেন। আমি ০.০১ ডলারের কমও পেয়েছি, আবার ০.১৭ ডলারও পেয়েছি- এর বেশী পেয়েছি বলে মনে পড়েনা। 

গুগোল কিভাবে ঠিক করে কোন Advertisement দেখাবে?

অন্য সব এডমিডিয়া থেকে গুগোল এখানেই এগিয়ে। ওদের নিজস্ব সার্চ ইঞ্জিন আছে, অন্যদের নেই। টার্গেটেড এডই গুগোল দেখায়, যেকারণে বিজ্ঞাপনদাতারাও গুগোলকে বেশী পছন্দ করে। আপনি যদি এখন "Mobile phone price in Bangladesh" লিখে সার্ছ করেন। এরপর যে সাইট ভিজিট করেন, আপনাকে ঐ মোবাইলের বিজ্ঞাপনই দেখাবে। আপনার অনেক তথ্য ওদের কাছে আছে, আপনি কি পছন্দ করেন সেটা গুগোল অনেক ক্ষেত্রে আপনার চেয়ে ভালো জানে। এজন্য অন্য এডের চেয়ে গুগোলের এডে ক্লিক বেশী পড়ার সম্ভাবনাই বেশী। 
এডসেন্স থেকে আয়ের সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি কোনটি?- এডসেন্স টিউটোরিয়াল
এটা হচ্ছে Quality Traffic. মাণসম্মত ভিজিটর আপনার সাইটে বা, ইউটিউব চ্যানেলে আনতে হবে। একটি ওয়েবসাইটে ১ লক্ষ ভিজিটর থেকে কেউ ৫ ডলার আয় করতে পারে, আবার ১০০০ ভিজিটর থেকেও কেউ ১০ ডলার আয় করতে পারে। ভালো কনটেন্ট তৈরি করতে হবে এবং সার্চ থেকে ভালো ভিজিটর আনতে হবে। 
আপনাকে একটি বিষয় সিলেক্ট করতে হবে যেটাতে বিজ্ঞাপনদাতারা বেশী টাকা ব্যয় করতে আগ্রহী। এজন্য যারা পাবলিশার তাদেরও Adwords এর প্রয়োজন পড়ে- কি ওয়ার্ড রিসার্চ এর জন্য। অনেকগুলো বিষয় নিয়ে না লিখে বা, ইউটিউব কনটেন্ট তৈরি না করে একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের কনটেন্ট তৈরি করা উচিত। সৃজনশীলতা, বুদ্ধিমত্তা, কাজে লেগে থাকা এবং কঠোর পরিশ্রমই আপনাকে সাফল্য এনে দিতে পারে। 

এডসেন্স এর জন্য একটি ভালো ওয়েবসাইট কিভাবে তৈরি করবো?-এডসেন্স টিউটোরিয়াল

রিসার্চ করার প্রয়োজন আছে, কিন্তু তার চেয়ে বেশী প্রয়োজন  নিজের কাজ উপভোগ করা। একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা দশ বছর আগে যতটা কঠিন ছিলো, এখন আর ততটা কঠিন না। আপনি চাইলেই -blogger, wordpress এমনকি ডোমেইন, হোস্টিং কিনে Wordpress বা, অন্য অনেক ধরণের Application ব্যবহার করে কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়াই ভালো একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলতে পারবেন- এজন্য HTML, JAVASCRipt, Php এইসব জানার কোন প্রয়োজন নেই। 
একটি নিশ বা, বিষয় প্রথমে নির্ধারণ করুন যেটা নিয়ে আপনার ওয়েবসাইটে আপনি লিখবেন। এবার, সেই বিষয় নিয়ে লেখার জন্য ব্লগস্পটে একটা ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলুন। অন্য সব কিছু বাদ দিয়ে আমি, ব্লগস্পট বলছি কারণ- এটা ফ্রী, এটা সবচেয়ে Fast, সার্চ ইঞ্জিনে সবচেয়ে উপরের দিকে দেখাবে(fast হওয়ার কারণে)। আমি অন্য কিছু সাজেস্ট করলে আমার লাভ হতো- যেমন Infinityfree, namecheap, namesilo, Godaddy ইত্যাদি থেকে আমি চাইলে রেফারেল কমিশন নিতে পারতাম। 

কিভাবে এডসেন্স এ জয়েন করবো

ব্লগস্পট দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করলে Hosted Adsense ব্যবহার করা যায়। এছাড়া আপনার ওয়েবসাইটে ভালো কনটেন্ট থাকলে এবং ওয়েবসাইটের বয়স ৬ মাস হলে যেকোন ওয়েবসাইটে এডসেন্স এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই ৬ মাসের জন্য এডসেন্স এর বিকল্প নিয়েও আমাদের লেখা আছে, সেটা চাইলে পড়তে পারেন। যাদের ৬ মাসের চেয়ে পুরনো ওয়েবসাইট আছে তারা - http://adsense.google.com থেকে এডসেন্স এর জন্য আবেদন করুন। কিভাবে আরো বেশী আয় করা যায়, এবং এডসেন্স এ কিভাবে সহজে Approval পাওয়া যায় এগুলো নিয়ে আমাদের ধারাবাহিক এডসেন্স টিউটোরিয়াল আপনাদের উপকারে আসবে। 

গুগোল এডসেন্স নিয়ে কিছু ট্রিকস এবং টিপস

কেউ আপনার সাইট ভিজিট করবে না, যদি ভিজিট করার একটি কারণ আপনি তৈরি করে না দিতে পারেন। বিভিন্নভাবে এই কারণ আপনি তৈরি করে দিতে পারেন(মনে রাখবেন ইউনিক আর্টিকেল লিখতেই হবে, সেখানে থাকবে চমক)। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেমনঃ ফেসবুকে কোন একটা লেখা ভাইরাল করে দেয়ার চেষ্টা করুন, লেখার সময় এমনভাবে লিখুন যেন আপনি কোন গোপন বিষয় সবাইকে জানাতে যাচ্ছেন, বিতর্ক তৈরি করুন। উদাহরণ দেই- নুসরাত ফারিয়ার পাদ বা, পাতাকা, আল্লাহ মেহেরবান গান এগুলো তাকে প্রচন্ড জনপ্রিয়তা এবং আয়ের পথ খুলে দিয়েছে। আপনার গালাগালি তার জন্য আশীর্বাদ। মিথ্যা তথ্য দিবেন না, কারণ ভিজিটররা সততা আশা করে। সত্য তথ্যের মাঝে যতটা চমক আনা যায় ততই ভালো। নিয়মিত কি ওয়ার্ড রিসার্চ করে লিখুন। আরো জানতে পড়ুন  আমাদের এই এডসেন্স টিউটোরিয়াল সিরিজ। 
এডগুলো এমন জায়গায় এমনভাবে রাখতে হবে যাতে এগুলোকে দেখে এড মনে না হয়, মনে হয় কনটেন্ট। আর এস ই ও করুন যাতে করে এমন ভিজিটর আসে যারা আপনার ওয়েবসাইটে থাকবে এবং বেশী টাকা পাওয়া যায় এমন এডে ক্লিক করবে। জীবনের অন্য সব কিছুর মত এডসেন্স নিয়ে সফলতা পাওয়াটাও খুব একটা সহজ না। যদি প্রথমদিকে সফলতা নাও পান, হতাশ না হয়ে চেষ্টা করে যান, সফলতা আসবেই। যদি ব্যর্থ হন তাহলে ভাববেন আপনি কোন ভূল করেছেন, ভূলটা চিহ্নিত করে সেটা এড়িয়ে চলুন।



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন