Wednesday, July 24, 2019

ইউটিউবের প্রতিষ্ঠাতা তিনজনের একজন কি বাংলাদেশী?

তিনজন ব্যক্তি পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট ইউটিউবের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে সারা বিশ্বে পরিচিত। তারা হচ্ছেন- চ্যাড হার্লি, স্টিভ চেন এবং জাওয়াদ/জাভেদ করিম। তিনজনই একসময় paypal এ কর্মরত ছিলেন(সেই Paypal যা ভুটানে থাকলেও বাংলাদেশে নেই)। 

পড়াশোনা কতদূর, CGPA কত, বিসিএস এ টিকেছিল?
আমি যতদূর জানি তিনজনের একজনেরও বিসিএস পরীক্ষা দেয়ার যোগ্যতা ছিল না। বিসিএস দিতে হলে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হয় এবং বিদেশে থাকার ইচ্ছা বা, বিদেশী কাউকে বিয়ে করার ইচ্ছা থাকলেও বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের পরীক্ষা দেয়া যায় না। হার্লি ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিজাইনে পড়েছিলেন, জাওয়াদ/জাভেদ আর চেন দুজনেই ইলিনয়েস বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্সের ছাত্র ছিলেন। কার CGPA কত সেই তথ্য আপনাদের দিতে পারছি না বলে আমি দুঃ খিত

জাভেদ করিমকে নিয়ে সবার আগ্রহ

এই ব্যাক্তি সর্বপ্রথম ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করেছিলেন। তাঁর বাপ বাংলাদেশী আর মা জার্মান। জন্মেছিলেন জার্মানিতে, পরে আমেরিকায় পড়াশোনা করেন। 
ইউটিউবের প্রথম ভিডিও আপলোড করেন জাভেদ, ভিডিওর নাম ছিল- "আমি চিড়িয়াখানায়(খুবই ক্রিয়েটিভ নাম)"। আপনাদেরকে সেই ভিডিও দেখাতে পারলে আমি খুশি হতাম, 73 মিলিয়ন ভিউ হয়েছে(এই লেখা পর্যন্ত)
বাংলাদেশের যারা বড় বড় ইউটিউবার আছেন, তারা প্রতিষ্ঠাতার কাছ থেকে লোগো ডিজাইন, ইন্ট্রো তৈরি আর, চ্যানেল ডিজাইন নিয়ে কিছু শিখতে পারেন। ভেরিফাইড এই চ্যানেলে এখন এই একটাই ভিডিও আছে। 
বাকি যে দুইজন এর মধ্যে ডিজাইনার হার্লির বাড়ি যুক্তরাষ্ট্রে, আর চেনের জন্ম তাইওয়ানে- আট বছর বয়সে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান।
বাংলাদেশে ফাইন আর্টসে পড়া কোন ছেলে এরকম একটি উদ্যোগ নিতে পারবে বলে আপনি বিশ্বাস করেন, যা হার্লি পেরেছিলেন(আপনি অভ্র কি বোর্ডের ডাক্তারের উদাহরণ দিতে পারেন, কিন্তু আমি নিশ্চিত বাংলাদেশের প্রায় সব ভালো ছাত্র-ছাত্রীদের সায়েন্সেই পড়ানো হয়েছে জোর করে হলেও)। ছেলে পড়াশোনায় ভালো করছে- ধরে সায়েন্সে ভর্তি করে দাও, ওর ইতিহাস ভালো লাগে তাতে কি। হার্লির ক্ষেত্রে তা ঘটেনি, সে আর্টস ভালোবাসতো- সেটাই পড়েছে এবং তাঁর ডিজাইনের জ্ঞান আর প্রযুক্তির জ্ঞানের মিলন ঘটিয়েছে ইউটিউবের মাধ্যমে। 

গুগোলের কাছে ইউটিউব এখন বিক্রিত মাল, গুগোল ভালোই ব্যবহার করছে। প্রচুর আয় করছে, করাচ্ছে। মানুষকে ব্যবহার করছে, বিনোদন দিচ্ছে। 

No comments:

Post a Comment