Sunday, July 21, 2019

বাংলায় লিখে আয়- বাংলা আর্টিকেল লিখেও আয় করা যায়?


আপনারা যারা বাংলায় আর্টিকেল লিখতে চান বা, ব্লগে লিখছেন তাদের জন্য এই লেখাটি। আয় করার বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে। আপনি যেকোন পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন-
  1. এড দেখিয়েঃ এটি সবচেয়ে জনপ্রিয় পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে অনেকেই আয় করে থাকেন। বাংলা ওয়েবসাইট বা, ব্লগগুলোর আয়ের প্রধান কিংবা, বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই একমাত্র মাধ্যম এড দেখানো। এডসেন্স এর এড দেখিয়ে অনেকেই আয় করছেন। এজন্য আপনার প্রয়োজন হবে জনপ্রিয়তা।প্রতিদিন ১৫০০-২০০০ জন আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করলে ৩-৪ ডলার আশা করতেই পারেন(নির্দিষ্ট কোন এমাউন্ট নেই, কে দেখছে, কি দেখছে তার উপর নির্ভর করে)। 
  2. এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে: অন্য কারো পণ্য আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যদি বেচে দিতে পারেন। তাহলে ওরা ওদের আয়ের একটা অংশ আপনাকে দেবে। বাংলাদেশে দারাজ, পিকাবো, বাগডুমসহ অনেক ওয়েবসাইট এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে দেয়। ডোমেইন-হোস্টিং প্রভাইডারদের তো সবাই চায় আপনি তাদের প্রডাক্ট বিক্রি করে দিন।
  3.  নিজের প্রডাক্ট বিক্রি করেঃ কেউ যদি চিন্তা করেন বিক্রিই তো করবো, তো নিজের পণ্যই বিক্রি করি না কেন। অনলাইনে নিজেই একটা বইয়ের দোকান বা, ইলেকট্রনিক্সের দোকান দিয়ে দেই। সেভাবেও আপনি আয় করতে পারেন।
এই লেখাটি যারা পড়ছেন তাদের সম্ভবত ব্লগিং ছাড়া অন্যান্য পদ্ধতি খুব একটা যুতসই বলে মনে হচ্ছে না। গল্প-কবিতা এগুলো যদি লিখতে পারেন, তাহলে গল্প দিয়ে একটা ব্লগ শুরু করে দিন- আমার মনে হয় ভালো সফলতা পাবেন। এখানে প্রতিযোগিতা কম, ভিজিটর বেশী- ব্লগারদের ভিজিটর থাকলে আয়ও বেশী হয়। 
ব্লগস্পট নাকি ওয়ার্ডপ্রেসঃ পৃথিবীতে সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্লগিং প্ল্যাটফর্ম ওয়ার্ডপ্রেস। এখানে ডোমেইন, হোস্টিং এর জন্য টাকা লাগে। অনেক সময় কম টাকায় খারাপ হোস্টিং নিয়ে বিপদে পড়তে হয়। বাংলাদেশী যারা ফ্রিতে লেখালেখি করে দু পয়সা রোজগার করতে চান তাদের জন্য ব্লগস্পটই ভালো হবে। 

নির্দিষ্ট বিষয় বেছে নিয়ে সেই বিষয়ের সাথে মিল রেখে ডোমেইন নাম নেবেন এবং ওয়েবসাইটের লেখাগুলোও সবসময় ঐ বিষয়ে রাখার চেষ্টা করবেন, একটি ফেসবুক আর একটি টুইটার পেজ খুলবেন ওয়েবসাইটের নামে। ডোমেইন নেম ফ্রিতে নেন আর টাকা দিয়ে কিনে নেন এটা বড় কোন ব্যাপার না(গুগোল সার্চে আসবে কি না সেটা এই বিষয়ের উপর নির্ভর করে না, অন্তত গুগোল নিজেই তাই বলে)। 

No comments:

Post a Comment