এডসেন্স টিপস- নিজের লেখা কখনো অন্য সাইটে শেয়ার করবেন না

Share:
এডসেন্স টিপস
এডসেন্স টিপস

এডসেন্স নিয়ে টিপস দেওয়ার মত অত বেশী অভিজ্ঞতা আমার নেই, তবে গত তিন বছর ধরে আমার একটি এডসেন্স একাউন্ট আছে যেটাতে আয় ১০০ ডলার অতিক্রম করতে যাচ্ছে। আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা এবং এই বিষয়ে অন্যদের লেখা পড়ে যেটা বুঝতে পেরেছি নতুন এডসেন্স ইউজারদের সাথে আমি সেটা এখানে শেয়ার করতে যাচ্ছি- অবশ্যই আমার এই লেখাটা আপনাদের জন্য অনেক হেল্পফুল হবে। 

এডসেন্স টিপস- নিজের আর্টিকেল সরাসরি অন্য সাইটে শেয়ার করা

নিজের অভিজ্ঞতার কথা বলি-
আমি একটা সময় এই কাজ করতাম। বাংলাদেশে টেকটিউনস, সামহোয়াইনব্লগ এবং এরকম কয়েকটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট আছে যেগুলোতে বাংলা আর্টিকেল লিখে সেখানে নিজের সাইটের লিংক সেখানে শেয়ার করলে কিছু নতুন ভিজিটর পাওয়া যেত এবং সেগুলোর র‍্যাংকিং যেহেতু তুলনামূলক ভালো, তাই এই সাইটের র‍্যাংকিংও বাড়তো। আমি যেটা করতাম- আমার নিজের লেখা ভালো ভালো আর্টিকেলগুলো ঐসব সাইটে হুবহু কপি করে তার নিচে নিজের সাইটের লিংক দিয়ে লিখে দিতাম- "এই লেখাটি এর আগে TutorialsBangla তে এই শিরোনামে প্রকাশিত"।  
দিব্যি ভিজিটর চলে আসত এবং ব্যাকলিংক ও পেতাম- আহ আমি কি Cool. Quora নামের একটা প্রশ্নোত্তরের বিখ্যাত ওয়েবসাইট আছে, সেখানে দেখলাম একজন এই একই প্রশ্নের অর্থাৎ, নিজের লেখা অন্য সাইটে দেয়া উচিত কি না এই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে। 

আমার ক্ষেত্রে যেটা ঘটেছে সেটা তার উত্তরের সাথে মিলে গেছে- সাথে নতুন কিছু যুক্ত হয়েছে। এবারে আপনাদের সেটা বলি-


নিজের লেখা হুবহু অন্য সাইটে দেয়া যাবে কি না?
আগে গুগোল এত চালাক ছিলো না। এক ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট অন্য সাইটে শেয়ার করলে এবং সেখানে লিংক দিলে সেটাকে ব্যাকলিংক হিসেবে কাউন্ট করতো এবং ঐ সাইটের র‍্যাংক বাড়ত। এখন, এই ধরণের কন্টেন্টকে গুগোল ডুপ্লিকেট কন্টেন্ট হিসেবে ধরে নেয় এবং বেশীরভাগ ক্ষেত্রে- যে সাইটের র‍্যাংকিং ভালো সেই সাইটের লেখাটাকে আগে দেখায়। সুতরাং এটা কখনোই করা উচিত হবে না। ব্যাকলিংক নিতে হলে আরেকটি ইউনিক আর্টিকেল ঐ সাইটে লিখে সেখানে লিংক দিতে হবে। 



আমার ক্ষেত্রে যেটা ঘটেছে- খাটি বাঁশ
TutorialsBangla.com এর কিছু লেখা যেমন- ইউটিউব কি? ইউটিউব কমিউনিটি গাইডলাইন, মানসিক দক্ষতা সিলেবাস আরো কিছু ভালো আর্টিকেল যেগুলো অনেক কষ্ট করে Brainstorming করে লেখা সেগুলো আমি বিভিন্ন সাইটে সরাসরি কপি করে দিয়ে নিজের সাইটের র‍্যাংকিং বাড়ানোর ধান্দা করেছিলাম। ফল হিসেবে- ঐ সাইটের লেখা প্রথম পেজের প্রথমে এবং আমার লেখা সার্চে নেই। এইটুকু ঘটলেই সেটাকে বাঁশ বলা যেত।
এখানেই শেষ না, আমার এডসেন্স একাউন্টে যখন ১০০ ডলার অতিক্রম করেছে, তখন আমাকে এডসেন্স থেকে জানানো হলো- আপনার এই সাইটে Scraped Content আছে যেগুলো নতুন কোন গুরুত্ব বহন করে না, তাই আমরা এই সাইটকে Disable করে দিলাম। আমি Apply করে বুঝালাম, এই ওয়েবসাইটের লেখাটাই মৌলিক, অন্যদেরটা কপি। কিন্তু কে শোনে কার কথা, উত্তর আসলো আগেরটাই। 
এবারে আমার সব লেখা মুছে দিয়ে নতুন টেমপ্লেটে নতুন তিন চারটি লেখা দিয়ে ওদের কাছে আবার Apply করলাম এবং আপনারা দেখতেই পাচ্ছেন Adsense এর এড দেখাচ্ছে। So- Don't do it.


এতদিনে আরেকটা বিষয় বুঝেছি

আমি অনেকগুলো ওয়েবসাইট চালিয়েছি। এর মাঝে শুধু একটা বিষয়ের উপর ভিত্তি করে যে ওয়েবসাইটগুলো ছিলো, সেগুলোতে আমার লেখা আর্টিকেল সার্চ ইঞ্জিনে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে ছিলো। এই সাইটটিতে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আর্টিকেল লেখা হয়। আপনারা যারা নতুন আর্টিকেল লিখতে চান তারা যদি গ্রুপ হিসেবে কাজ করেন তাহলে এরকম মাল্টিপল নিশ বেছে নিতে পারেন। অন্যথায়, একজন লিখলে একটা নির্দিষ্ট বিষয়েই লেখা উচিত। একটা বিষয়ের মাঝেও বৈচিত্র আনা যায়। বাংলাদেশে পপুলার কোন বিষয় যেটা আপনার ভালো লাগে সেটা নিয়ে লিখতে পারেন। 
যত গভীরে যেতে পারেন, ততই ভালো- ভিজিটর যদি থাকে। যেমন - খেলাধুলা নিয়ে লেখার চেয়ে ক্রিকেট নিয়ে লেখা ভালো। ব্লগিং নিয়ে লেখার চেয়ে শুধু ব্লগস্পট বা, ওয়ার্ডপ্রেস নিয়ে লেখাটা ভালো হতে পারে। 

সবশেষে, এটাই বলবো যে- এডসেন্স নিয়ে ভালো কোন টিপস দিতে হয়ত পারলাম না তবে,  আমার যে অভিজ্ঞতা শেয়ার করলাম সেখান থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। আর, ব্যাকলিংক এর ক্ষেত্রে আরেকটা বিষয়ও আমি খেয়াল করেছি। ইন্টারনাল ব্যাকলিংক কিন্তু অনেক কার্যকরি। 

সাহায্য নিয়েছি- Quora.com থেকে

No comments