গুগোল সার্চে প্রথম পেজে আসার অব্যার্থ উপায়


ব্ল্যাক হ্যাট এস ই ও, কালো টুপি নয়

কোন সাইটের এস ই ও করার অর্থ অনেকে ভেবে থাকেন গুগোলকে বোকা বানানো, আর বোকা বানিয়ে সাধারণ মাণের সাইটগুলোকে সার্চ রেজাল্টে প্রথমে দেখান। প্রকৃতপক্ষে এস ই ও এর উদ্দেশ্য কাউকে বোকা বানানো না। গুগোলকে ভাল মাণের এবং তথ্যে সমৃদ্ধ ওয়েবসাইট খুজে বের করতে সাহায্য করা। দুঃখিত শুধু গুগোল না আরো অন্যান্য সব সার্চ ইঞ্জিনের ক্ষেত্রেই একই কথা প্রযোজ্য। অনেকে নিয়ম ভেঙ্গে সার্চ ইঞ্জিনকে বোকা বানানোর খেলায় মেতে ওঠেন যা আসলেই নিজের বোকামি ছাড়া কিছুই না।

চেষ্টা করে দেখতে চাই

প্রথমত, যাদের যোগ্যতা আছে তারাই শুধু সার্চ ইঞ্জিনকে বোকা বানাতে পারবেন। যেমনঃ গুগোল হাজার হাজার বিশেষজ্ঞকে চাকরি দিয়ে রেখেছে আপনার কাছে ঠকার জন্য না। তাই যদি এর পরও আপনার গুগোলকে বোকা বানানোর সামর্থ্য থাকে তাহলে সেই সামর্থ্য ভাল কাজে ব্যবহার করা উচিত। তাতে আমরাও লাভবান হব আপনিও হবেন।
দ্বিতীয়ত, অনেকেই আছেন যারা এতটাই বোকা যে গুগোলকে মেটা ডেসক্রিপশনে উল্টোপাল্টা লিখে ভিজিটর নিয়ে আসতে চান। ভাই, সার্চ ইঞ্জিন আপনার লুকানো লেখা সহজেই ধরতে পারে। তাই নিয়ম মেনে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করা উচিত। নিজের বোকামি থেকে বেরিয়ে আসুন, সফল হতে চাইলে শিখুন এবং কাজে লাগান।

কালো টুপি বৃত্তান্ত

আসল জিনিসই তো এড়িয়ে যাচ্ছিলাম। ব্ল্যাক হ্যাট এস ই ও নিয়ে লিখব বলে ভাবছিলাম। যাই হোক ব্ল্যাক হ্যাট এস ই ও হচ্ছে নিয়ম না মেনে মানে গুগোল যেভাবে চায় সেভাবে না করে অন্যভাবে ঠকানোর মানষিকতা নিয়ে চালাকির মাধ্যমে নিজের প্রত্যাশিত সাইটকে প্রথমদিকে আনার চেষ্টা করা। কালো টুপির সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই। কালোকে যদি নেগেটিভ অর্থে ধরেন তাহলে অবশ্যই সম্পর্ক আছে। হ্যাকাররা এই বিষয়ে বেশী পারদর্শী। 

হোয়াইট হ্যাট এস ই ও বা, নিয়ম মেনেই সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করা উচিত। কেউ যদি ভূল করে ভূলভাল সাইটে চলেও আসে সে চলে যাবে আপনার সাইট দেখবে না, কারণ সে ঐ মুহূর্তে যা চাচ্ছিল তা আপনার সাইটে নেই। দীর্ঘমেয়াদি সফলতার কথা ভাবলে নিয়ম মেনে চলা উচিত এবং অবশ্যই ধৈর্য ধারণ করা উচিত।


0 comments:

Post a Comment